কবিতা চতুষ্টয়

।। যৌথাগমন ।।

চন্দমুখী হয়ে ঘুলঘুলির কন্দরে
হয়তো পাবো অজস্র চ্যুতি
নয়তো প্রভার ঢেউ…

উভফলও আসতে পারে
অসহ্য অতিথির ন্যায়—
প্রত্যেক শ্বাসকে নিতেই হয়
এমন দূর্জয় স্বাদ, দ্বিধারী অভিজ্ঞতা…

।। সুতিল বরাবর ।।

এ জীবন এমন
যেন শীতের পর্ণমোচীবন
যেন দাবানলের এক জঙ্গল-

চিরহরিৎসুর হারিয়ে গেলো
সেই কবে ব্রোথেলের নিচে…ডুবরিহীন
দেশের নদে! বসন্তের রাজবেশ
কবে আসবে পতনমুখী জীবনের শিষে
পত্রপল্লব পুষ্পের অধিবিতান নিয়ে?

যেতে যেতে হয়তো চলে যাব
একদিন সেই ক্রান্তীয় একাযাপনে
আর কি ফেরা হবে চিরহরিতের দেশে?

তবু চাই যেন থাকি তাহোনির
খুব কাছাকাছি
থাকিঅই সুতিল বরাবর—

।। প্রঘ্রাণের বিবিধ মসলা ।।

বিবিধ মসলা থেকে বেরিয়ে আসা প্রঘ্রাণ
যেন ঘিরে আছে অই লতানো দেহের বাঁকল
অমারাতের মৌবনৃবিধুর আখ্যানত্যক্ত বাগে
ইতিমুখের ফসিলফুল…

এই পরিধির অভিবাসীদের বড্ড ক্ষিধে
খেতে খেতে সব খেয়ে ফেলে মৃত্যুর পরিত্রাণাশে!
অথেচ আসল পরিত্রান এইসব হরিৎ বিরুতেই

এখান থেকেই তো বেরিয়ে আসে আঘ্রাণের
বিবিধ মসলা…

।। এসো হে কুইটোবসন্ত ।।

এসো হে কুইটোবসন্ত এই হলুদ জীবনে
চলো ময়ূররঙে খুব করে সাজাই
এ সংসার…

চলো যাই তন্দ্রায় আমাজনের গহনে
অই পাতাপুঞ্জের দপ্তরে, প্রণয়ী আমার
চলো যাই তন্ত্রতটে, অই আদিম বাগানে
এই হেরেম ছেড়ে অই সবুজ অরণ্যে

এসো হে কুইটোবসন্ত এই দিয়ারার সংসারে
চলো নির্ভার হই অই শিপকা ধরে
হেঁটে হেঁটে, বহুদূর হেঁটে…

নকিব মুকশি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *