গার্গীর দুইটি কবিতা



ছায়া-গ্রাস

অন্তরালে চলে গেলেই পৃথিবীতে ছায়া ঘনায়
মনে পড়ে, কোন এক ছায়াময় দুপুরে রাখালের গরুর পালে বাঘ পরার কথা…
কোন অঞ্চলে সত্যিকারের বাঘ থাকে আমার জানা নেই-
নির্জন দুপুর থেকে নিশুতি রাত পর্যন্ত ছায়ার সন্ধান চালাই
কোথাও কোন বাঘ বা ছায়া কোনটাই খুঁজে পাই না।
একান্তে চোখ বুঁজলে একটুকরো অন্তরাল
পৃথিবীর সব গোলার্ধগুলোকেই কেমন যেন এক এক করে ছায়ারা গিলে ফেলছে মুহূর্তে…

শীতঘুম

জরাজীর্ণ মহাদেশে মৃতপ্রায় সভ্যতা
প্রাণ খুঁজি ফাটলের প্রান্তদেশ বরাবর…
হাত বাড়ালেই উষ্নতা নেই কোথাও
তবুও প্রতিটা রাতেই মহাকাশে কালপুরুষ আসে।
ফিরে যাই অনন্ত অতীতে
তলোয়ারের সামনে রুখে দাঁড়াই, তবুও
অন্ধকারে একান্তে গুটিয়ে রাখি নিজেকে।
শামুকের গতিতে খোলোসের মধ্যে ঢুকছি
আমার যে শীতঘুমের সময় হয়ে এসেছে…



 

error: Content is protected !!